Wednesday, July 31, 2019

PhotoScan by Google Photos android app

PhotoScan by Google Photos Android app


PhotoScan is another scanner application from Google Photographs that allows you to sweep and spare your most loved printed photographs utilizing your telephone's camera.

Picture immaculate and glare-free 

Don't simply snap a photo of an image. Make improved advanced outputs, any place your photographs are.


  1. – Get without glare examines with a simple well-ordered catch stream 
  2. – Programmed trimming dependent nervous location 
  3. – Straight, rectangular outputs with viewpoint rectification 
  4. – Keen turn, so your photographs remain right-side-up regardless of what direction you check them 

Sweep like a flash 


Catch your most loved printed photographs rapidly and effectively, so you can invest less energy altering and additional time taking a gander at your terrible youth hairstyle.

Sheltered and accessible with Google Photographs 

Back up your outputs with the free Google Photographs application to guard them, accessible, and sorted out. Breath life into your outputs with motion pictures, channels, and propelled altering controls. What's more, share them with anybody, just by sending a connection.

Downlaod Now 1
 Downlod Now 2




Google Sheets Android application

Google Sheets Android application


Make, alter and team up with others on spreadsheets from your Android telephone or tablet with the Google Sheets application. With Sheets, you can:



  1. - Make new spreadsheets or alter existing records 
  2. - Offer spreadsheets and team up in a similar spreadsheet simultaneously. 
  3. - Work anyplace, whenever - even disconnected 
  4. - Add and react to remarks. 
  5. - Configuration cells, enter or sort information, see outlines, embed equations, use discover/supplant and that's only the tip of the iceberg. 
  6. - Never stress over losing your work – everything is spared consequently as you type. 
  7. - Get bits of knowledge, right away, rapidly supplement outlines and apply to design in one tap - with Investigate. 
  8. - Open, alter and spare Exceed expectations documents. 

Authorizations Notice 

Contacts: This is utilized to give recommendations of individuals to add to documents and offer with.

Capacity: This is utilized to spare and open documents on USB or SD stockpiling.

Download Now 1
 Download Now 2

more app



Chrome Beta Android app

Chrome Beta Android app

Welcome to Chrome Beta for Android!

  1. See the most recent highlights: Give a shot the freshest highlights. (Here and there these might be somewhat harsh around the edges.) 
  2.  Give early input: Let us comprehend what you think and help make Chrome for Android a superior program. 


You can introduce Chrome Beta nearby your present rendition of Chrome for Android.

Download Now 1

Download Now 2



Hangouts android application

Hangouts android application

Use Home bases to stay in contact. Message contacts, begin free video or voice calls and jump on a discussion with one individual or a gathering.


  1.  Incorporate every one of your contacts with gathering talks for up to 150 individuals. 
  2.  State more with status messages, photographs, recordings, maps, emoticon, stickers, and enlivened GIFs. 
  3.  Transform any discussion into a free gathering video call with up to 10 contacts. 
  4.  Call any telephone number on the planet (and all calls to different Joints clients are free!). 
  5.  Associate your Google Voice represent telephone calls, SMS messaging, and phone message joining. 
  6. Stay in contact with contacts crosswise over Android, iOS, and the web, and match up visits over the entirety of your gadgets. 
  7.  Message contacts whenever, regardless of whether they're disconnected. 


Notes: Portable bearer and ISP charges may apply. Calls to Joints clients are free, yet different calls may be charged. View our calling rates at https://www.google.com/home bases/rates

Download Now 1
Download Now 2



Google Messages Android app

Google Messages Android app


Meet Messages, Google's authentic application for messaging (SMS, MMS) and visit (RCS). Message anybody from anyplace with the unwavering quality of messaging and the wealth of visit. Keep in contact with loved ones, send bunch messages, and offer your preferred pictures, GIFs, emoticon, stickers, recordings and sound messages.

Perfect, natural, and agreeable structure 


Moment notices, savvy answers and a crisp new structure make imparting quicker and progressively fun. With dim mode, you can utilize Messages serenely in low-light circumstances.

Simple sharing 


Select or take pictures and recordings legitimately from the application and offer effectively. You can even send sound messages to your contacts.

More extravagant discussions

Send sound messages, emoticon, stickers, or your area. You can likewise send and get instalments with Google Pay.

Ground-breaking search 


Presently you can discover a greater amount of the substance partook in your discussions: tap on the inquiry symbol and select a particular contact to see your informing history with them and all the photographs, recordings, locations or connections you imparted to one another.

Talk highlights (RCS) 


On upheld transporters, you can send and get messages over Wi-Fi or your information arrange, see when companions are composing or when they have perused your message, share pictures and recordings in high calibre, and the sky is the limit from there.

Messages are bolstered on gadgets running Android™ 5.0 Candy or more.

Download Now 1
Download 2


more app

Google Docs Android app


Google Docs Android app

Make, alter and work together with others on archives from your Android telephone or tablet with the Google Docs application. With Docs you can:

  1. Make new records or alter existing documents 
  2. Offer records and work together in a similar report simultaneously. 
  3. Work anyplace, whenever - even disconnected 
  4. Add and react to remarks. 
  5. - Never stress over losing your work – everything is spared naturally as you type. 
  6.  Exploration, directly in Docs with Investigate 
  7.  Open, alter and spare Word records. 

Authorizations Notice 

Contacts: This is utilized to give proposals of individuals to add to records and offer with.

Capacity: This is utilized to spare and open records on USB or SD stockpiling.

Download Now 1
Download Now 2


Google Calculator android app

Mini-computer gives basic and progressed numerical capacities in a wonderfully structured application.


  • Perform fundamental estimations, for example, expansion, subtraction, augmentation, and division 
  • Do logical activities, for example, trigonometric, logarithmic, and exponential capacities



Download Now
Download Now 2

Gboard - the Google Keyboard android app


Gboard has all that you cherish about Google Console—speed and dependability, Skim Composing, voice composing, and the sky is the limit from there—in addition to Google Search worked in. No more application exchanging; simply search and offer, directly from your console. 

Float Composing — Type quicker by sliding your finger from letter to letter 

Voice composing — Effectively manage the age in a hurry 

Penmanship — Write in cursive and printed letters 

Search and offer — Press the G to look and share anything from Google 

Emoticon Search — Find that emoticon, quicker 

GIFs — Quest and offer GIFs for the ideal response. 

Multilingual composing — No all the more exchanging between dialects physically. Gboard will autocorrect and recommend from any of your empowered dialects. 

Google Interpret — Decipher as you type in the console 

Several language assortments, including: 

Afrikaans, Amharic, Arabic, Assamese, Azerbaijani, Bavarian, Bengali, Bhojpuri, Burmese, Cebuano, Chhattisgarhi, Chinese (Mandarin, Cantonese, and others), Chittagonian, Czech, Deccan, Dutch, English, Filipino, French, German, Greek, Gujarati, Hausa, Hindi, Igbo, Indonesian, Italian, Japanese, Javanese, Kannada, Khmer, Korean, Kurdish, Magahi, Maithili, Malay, Malayalam, Marathi, Nepali, Northern Sotho, Odia, Pashto, Persian, Clean, Portuguese, Punjabi, Romanian, Russian, Saraiki, Sindhi, Sinhala, Somali, Southern Sotho, Spanish, Sundanese, Swahili, Tamil, Telugu, Thai, Tswana, Turkish, Ukrainian, Urdu, Uzbek, Vietnamese, Xhosa, Yoruba, Zulu, and some more! Visit https://goo.gl/fMQ85U for the full rundown of dialects upheld 

Master tips: 

• Motion cursor control: Slide your finger over the space bar to move the cursor 

• Motion erase: Slide left from the erase key to rapidly erase various words 

• Make the number column constantly accessible (empower in Settings → Inclinations → Number Line) 

• Images indications: Show fast clues on your keys to get to images with a long press (empower in Settings → Inclinations → Long press for images) 

• One gave mode: On huge screen telephones, stick console to one side or the privilege of the screen 

• Subjects: Pick your own topic, with or without key fringes


Download Now 1




Wikipedia


youtube studio Android application



The authority YouTube Studio application makes it quicker and simpler to deal with your YouTube channels in a hurry. Look at your most recent details, react to remarks, transfer custom video thumbnail pictures, plan recordings, and get notices so you can remain associated and gainful from anyplace.

Highlights: 


  • Screen channel and video execution with the simple to-utilize investigation 
  • Channel and react to remarks 
  •  Get warnings when something significant occurs 
  •  Update video subtleties including thumbnail pictures, adaptation settings, and calendar dates 
  •  Oversee playlists 

Authorizations NOTICE: 


  1.  Contacts (Get Records): Expected to enable you to sign in to your record 
  2.  Capacity: Expected to enable you to store your video thumbnail pictures.


Download Now 1
Download Now 2

More app check:

Google Maps Go android app download


Google Maps Go android app download
Google Maps Go is the lightweight Dynamic Web Application variety of the first Google Maps application, presently with route support!

This rendition requires Chrome (on the off chance that you don't wish to introduce Chrome, it would be ideal if you use www.google.com/maps in your program).

Occupying multiple times less room on your gadget than the full Google Maps application, Google Maps Go is intended to run easily on gadgets with restricted memory and on temperamental systems without trading off speed to give your area, constant traffic updates, bearings, and train, transport, and city travel data. You can even inquiry and discover data around a large number of spots, for example, telephone numbers and addresses.

• Locate the quickest course joining bikes, metro, transports, taxi, strolling and ships

• Ride the metro, transport or train with live city open vehicle plans

• Explore your vehicle or bike with Route for Google Maps Go (https://goo.gl/2P5H2Z)

• Well ordered bearings with a course review, helping you prepare of time

• Arrive quicker with continuous traffic data and traffic maps

• Find and investigate new places

• Search and discover neighbourhood eateries, organizations, and other close-by spots

• Choose the best places to pass by perusing client surveys, and review pictures of sustenance

• Discover the telephone number and address to a spot

• Spare spots you need to or visit frequently, and rapidly discover them later from your portable

• Accessible in 70+ dialects

• Far reaching, precise maps (counting satellite and territory) in 200 nations and domains

• Open vehicle data for more than 20,000 urban communities

• Point by point business data for more than 100 million spots

Download Now 1
Download Now 2


More : app

Google Duo - High Quality Video Calls Android application



Google Duo - High-Quality Video Calls Android application

Google pair is that the highest quality video vocation app*. It’s straightforward, reliable, and works on smartphones and tablets.

Features:

Simple interface


Pick a dear and jump right in, with an easy interface that produces video vocation as easy collective faucet.

The highest quality video vocation app*
Experience a lot of reliable video calls with wonderful video quality whether or not you’re on Wi-Fi or on-the-go.

For humanoid and iOS devices
Duo works on humanoid and iOS smartphones and tablets, thus you'll be able to decide all of your shut friends and family exploitation only 1 app.

Knock Knock
See who’s vocation before you decide up with a live video preview.

Video Messages
Friend can’t answer your call? No downside. Leave them a video message for them to decide you right back. With a video message, you'll be able to still capture everything that moment you needed to share.


Voice Calls
Make voice-only calls to your friends after you can’t chat over video.

Based on Signals analysis cluster technical study examination video degradation time over 3G, LTE, and WiFi.

Data charges might apply. Check your carrier for details.

Download Now 1
Download Now 2

More Application:



Google Find My Device Android app


Google Find My Device Android app


Discover My Gadget encourages you to find your lost Android and lock it until you get it back.

Highlights

See your telephone, tablet or watch on a guide. In the event that present area isn't accessible, you'll see the last known area.

Utilize indoor maps to assist you with finding your gadget in air terminals, shopping centres, or other huge structures

Explore to your gadget with Google Maps by tapping the gadget area and after that the Maps symbol

Play a sound at full volume, regardless of whether your gadget is on quiet

Delete the gadget or lock it with a custom message and contact number on the lock screen

See system and battery status

See equipment subtleties

Authorizations Notice

• Area: Expected to demonstrate your gadget's present area on the guide

• Contacts: Expected to get to the email address related with your Google account

Discover My Gadget is a piece of Google Play Ensure

Download Now 1
Download Now 2

More Application:

সাকিব-বুবলির হিট সুপাটহিট ছবি এবার ঈদে- মনের মত মানুষ পাইলাম না ।

আসছে ঈদে ঢালিউডের শীর্ষ তারকাখ্যাত নায়ক শাকিব খানের একটি ছবি মুক্তি পেতে যাচ্ছে। জাতীয় চলচ্চিত্রপুরস্কারপ্রাপ্ত নির্মাতা জাকির হোসেন রাজু পরিচালিত এ ছবির নাম ‘মনের মত মানুষ পাইলাম না’। গত মঙ্গলবার সেন্সরে ছবিটি বিনাকর্তনে ছাড়পত্র পায়। খবরটি নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ডের ভাইস চেয়ারম্যান নিজামূল কবির। তিনি বলেন, ছবিটি দেখে খুবই ভালো লেগেছে আমার। শুধু আমার না বোর্ডের সকলেই বেশ প্রশংসা করেছেন। প্রশংসা পাবার মত ছবি এটি।

আশা করি, আসছে ঈদে দর্শকরা সিনেমা হলে একটা পরিচ্ছন্ন সিনেমা দেখতে পাবেন।

এদিকে শাকিব খানও ছবির শুটিংয়ের সময় থেকে বলে এসেছেন যে, ভালো একটি গল্পের সিনেমা হতে যাচ্ছে এটি। শাকিব খান ছবিটি সেন্সর পাবার পর জানালেন, দারুন একটি গল্প নির্ভর ছবি এটি। সেন্সর পাওয়ার খবর পেয়েছি। ছবিটি সেন্সর বোর্ডে দেখার পর সবাই প্রশংসা করেছেন। আশা করি, ‘পাসওয়ার্ড’-এর পর দর্শকরা ‘মনের মতো মানুষ পাইলাম না’ ছবিটি দেখেও এবার ঈদে মুগ্ধ হবেন। এ ছবিতে শাকিব খানের বিপরীতে অভিনয় করেছেন শবনম বুবলী। ছবিটির চিত্রনাট্য করেছেন আবদুল্লাহ জহির বাবু। ছবিটির গানগুলো লিখেছেন জাকির হোসেন রাজু ও গাজী মাজহারুল আনোয়ার। গানগুলোর সুর ও সঙ্গীত করছেন শফিক তুহিন। এরমধ্যে দুটি গানের দৃশ্যায়ন হয়েছে তুরস্কে। সিনেমাটি প্রযোজনা করেছে দেশ বাংলা মাল্টিমিডিয়া।

শেখ হাসিনার রাজনীতিক প্রথম সাক্ষাৎকার।

 

সদ্যপ্রয়াত সাংবাদিক মাহফুজ উল্লাহ সর্বপ্রথম ভারতের রাজধানী দিল্লিতে গিয়ে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রাজনৈতিক সাক্ষাৎকার গ্রহণ করেন। সে সময় শেখ হাসিনা প্রবাস জীবনযাপন করছিলেন। এর কিছুদিনের মধ্যেই তিনি দেশে ফিরে আওয়ামী লীগের সভানেত্রীর দায়িত্ব গ্রহণ করেন। সাক্ষাৎকারটি তৎকালীন জনপ্রিয় ‘সাপ্তাহিক বিচিত্রা’র ৩৯তম সংখ্যা, ১৩ই মার্চ ১৯৮১ সালে ছাপা হয়। উল্লেখ্য, সাক্ষাৎকার গ্রহণকালে মাহফুজ উল্লাহ শেখ হাসিনার যে ছবিটি (এখানে ছাপা) ক্যামেরায় ধারণ করেছিলেন, সেটাই স্বদেশ প্রত্যাবর্তনকারী শেখ হাসিনার সংবর্ধনার জন্য ছাপানো পোস্টারে ব্যবহার করা হয়। আওয়ামী লীগ নেতা সাবেক মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ এমপি তার কাছ থেকে ছবিটি চেয়ে নিয়েছিলেন বলে জানা যায়। মানবজমিন-এর পাঠকদের জন্য সাক্ষাৎকারটি কোনো ধরনের পরিবর্তন ছাড়া হুবহু ছাপানো হলো-

বেগম হাসিনা ওয়াজেদ
সভানেত্রী, আওয়ামী লীগ

প্রশ্ন: দীর্ঘদিন সক্রিয় রাজনীতি থেকে বিচ্ছিন্ন থাকার পর আপনি আবার রাজনীতিতে ফিরে এসেছেন। আপনি এই ফিরে আসাকে কীভাবে দেখছেন? রাজনীতিতে আপনার লক্ষ্য কি হবে?
উত্তর: ছাত্রজীবনে আমি রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলাম।

সূত্র:- মানবজমিন।

অভিনেতা আলমগীর ডেঙ্গু আক্রান্ত।

ঢাকাই চলচ্চিত্রের একসময়ের পর্দা কাঁপানো নায়ক আলমগীর এখন ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত। বর্তমানে তিনি রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। তিনি সুস্থ্যতার জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন।

তার পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, কয়েকদিন আগে হঠাৎ করেই তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাই চিকিৎসা নিতে স্কয়ার হাসপাতালে যান।চিকিৎসকরা তাকে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখেন তিনি ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত। তারপর তাকে দ্রুত ভর্তি হওয়ার পরামর্শ দেন। এমন অবস্থাতেই তিনি হাসপাতালে ভর্তি হয়ে যান। তবে বর্তমানে তার শারীরিক অবস্থার উন্নতি হয়েছে। দু-চার দিনের মধ্যেই তিনি হাসপাতাল ছেড়ে বাসায় যেতে পারবেন।

এদিকে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির পক্ষ থেকে গতকাল মঙ্গলবার (৩০ জুলাই) ডেঙ্গুর বিস্তার রোধ ও গুজবের প্রতিকারে আয়োজিত এক মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান অভিনেতা আলমগীরের সুস্থতার জন্য সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন।

 

গুজব ছড়ানোর বিষয়ে ফেসবুকের দায়বদ্ধতা আছে : তথ্যমন্ত্রী।

গুজব ছড়িয়ে সরকারকে বেকায়দায় ফেলার চেষ্টা হচ্ছে উল্লেখ করে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, গুজবের বিষয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকেরও দায়বদ্ধতা আছে।

আজ বুধবার (৩১ জুলাই) দুপুরে সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে গুজবের বিষয়ে আয়োজিত কমিটির বৈঠক শুরুর আগে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

বিস্তারিত আসছে….

গুজব ছড়ানোর বিষয়ে ফেসবুকের দায়বদ্ধতা আছে : তথ্যমন্ত্রী।

গুজব ছড়ানোর বিষয়ে ফেসবুকের দায়বদ্ধতা আছে : তথ্যমন্ত্রী 

গুজব ছড়িয়ে সরকারকে বেকায়দায় ফেলার চেষ্টা হচ্ছে উল্লেখ করে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, গুজবের বিষয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকেরও দায়বদ্ধতা আছে।

আজ বুধবার (৩১ জুলাই) দুপুরে সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে গুজবের বিষয়ে আয়োজিত কমিটির বৈঠক শুরুর আগে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

বিস্তারিত আসছে-

Tuesday, July 30, 2019

বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন "জয় বাংলা তথ্য প্রযুক্তি লীগ" সভাপতি সম্পাদক।

 

 

 

স্টাপ রিপোর্টার।।

বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন “জয় বাংলা তথ্য প্রযুক্তি লীগ” সভাপতি ও সম্পাদক।

“জয় বাংলা তথ্য প্রযুক্তি লীগ” কেন্দ্রীয় কমিটির পক্ষ থেকে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন।

শ্রদ্ধা নিবেদন করেন- বিশিষ্ট সমাজ সেবক, নারী কল্যানময়ী, নারী উদ্বোক্তা, সাবেক ছাত্র/ছাত্রী লীগ নেত্রী, বাংলাদেশ ধর্ম বিষয়ক উপ কমিটির সদস্য জনাবা লায়ন জেবিন সুলতানা কান্তা। সভাপতি “জয় বাংলা তথ্য প্রযুক্তি লীগ” কেন্দ্রীয় কমিটি।
এবং কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার ও আইসিটিবিদ, আমারএমপি ডট কমের মাধ্যমে এ্যাম্বিলিয়ন্থ এওয়ার্ড প্রাপ্ত, তরুন কবি, লেখক, প্রতিভাবান, উদ্ভাবক,গবেষক, আইসিটি উদ্বোক্তা, দক্ষ রাজনীতিবিদ –
জনাব নজরুল ইসলাম (শুভ রাজ)।
সাধারন সম্পাদক- “জয় বাংলা তথ্য প্রযুক্তি লীগ” কেন্দ্রীয় কমিটি।

শিক্ষা-প্রযুক্তি-শক্তি
জয় বাংলা
জয় বঙ্গবন্ধু।

 

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে যুক্ত সবার ছুটি বাতিল

ডেঙ্গু  পরিস্থিতি ও বন্যার কারণে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে যুক্ত সব কর্মকর্তা-কর্মচারীর ছুটি বাতিল করা হয়েছে।

এ ছাড়া চিকিৎসার সংকট মেটাতে প্রশিক্ষণে থাকা চিকিৎসকদের প্রশিক্ষণ সাময়িকভাবে স্থগিত করে তাঁদের চিকিৎসাকাজে যোগদান করানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

আজ মঙ্গলবার সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সমন্বয় ও সংস্কার শাখার সচিব শেখ মুজিবুর রহমান।

সংবাদ সম্মেলনের আগে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মো. শফিউল আলমের সভাপতিত্বে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সচিবসহ সংশ্লিষ্টদের নিয়ে এক সভা হয়। সভা থেকে সারা দেশের সরকারি কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেওয়া হয়, তাঁরা যেন তাঁদের অফিস ও আসবাবপত্র নিজেদের উদ্যোগে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখেন।

সূত্র: প্রথম আলো।

Monday, July 29, 2019

Google Chrome: Fast & Secure android browser download free

Google Chrome: Fast & Secure android browser download free

Google Chrome is a quick, simple to utilize and secure internet browser. Intended for Android, Chrome brings you customized news stories, brisk connects to your preferred locales, downloads, and Google Search and Google Interpret worked in. Download now to appreciate a similar Chrome internet browser experience you cherish over the entirety of your gadgets.

Peruse quick and type less. Look over customized query items that in a split second show up as you type and rapidly peruse recently visited site pages. Fill in structures rapidly with Autofill.

In secret Perusing. Utilize In secret mode to peruse the web without sparing your history. Peruse secretly over the entirety of your gadgets.

Synchronize Chrome Crosswise over Gadgets. When you sign into Chrome, your bookmarks, passwords, and settings will be naturally matched up over the entirety of your gadgets. You can consistently get to all your data from your telephone, tablet, or PC.

All your preferred substance, one tap away. Chrome isn't simply quick for Google Search, yet planned so you are one tap away from all your preferred substance. You can tap on your preferred news locales or web-based social networking straightforwardly from the new tab page. Chrome additionally has the "Tap to Look"- include on generally website pages. You can tap on any word or expression to begin a Google search while still on the page you are getting a charge out of.

Secure your telephone with Google Safe Perusing. Chrome has Google Safe Perusing implicit. It guards your telephone by demonstrating admonitions to you when you endeavour to explore risky locales or download perilous documents.

Quick downloads and view pages and recordings disconnected Chrome has a devoted download catch, so you can without much of stretch download recordings, pictures, and whole website pages with only one tap. Chrome additionally has downloads home ideal inside Chrome, where you can get to all the substance you downloaded, notwithstanding when you are disconnected.

Google Voice Search. Chrome gives you a real internet browser you can converse with. Utilize your voice to discover answers in a hurry without composing and go hands-free. You can peruse and explore snappier utilizing your voice anyplace, whenever.

Google Interpret worked in: Rapidly decipher whole site pages. Chrome has Google Make an interpretation of inherent to assist you with translating the whole web to your own language with one tap.

Go through less versatile information and speed the web. Turn on Light mode and utilize something like 60% less information. Chrome can pack content, pictures, recordings, and sites without bringing down the quality.

Brilliant customized suggestions. Chrome makes an encounter that is custom-fitted to your interests. On the new tab page, you will discover articles that Chrome chosen dependent on your past perusing history.

Downlaod Now

Download Now


More: 

অভিনেতা সৌমিত্র আর অপর্ণার বিরুদ্ধে দেশদ্রোহের মামলা

 

সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় ও অপর্ণা সেন

সৌমিত্র ও অপর্ণার

সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় ও অপর্ণা সেনভারতের চলচ্চিত্রের কিংবদন্তি অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় ও অপর্ণা সেনের বিরুদ্ধে দেশদ্রোহের অভিযোগে মামলা করা হয়েছে। জানা গেছে, বিহার আদালতে মামলাটি করেছেন সুধীর কুমার ওঝা নামের একজন আইনজীবী। চলচ্চিত্রের এই দুই বরেণ্য তারকার পাশাপাশি দেশের ৪৯ জন বিশিষ্ট ব্যক্তির বিরুদ্ধে দেশদ্রোহের অভিযোগ আনা হয়। এই তালিকায় রয়েছেন শ্যাম বেনেগাল, অনুরাগ কাশ্যপ, মণিরত্নম। দেশদ্রোহের পাশাপাশি তাঁদের বিরুদ্ধে ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত এবং দেশের অখণ্ডতা ক্ষুণ্ন করার অভিযোগ করা হয়েছে।

ভারতজুড়ে ধর্মীয় অসহিষ্ণুতা ও গণপিটুনি বন্ধের দাবিতে এবং ‘জয় শ্রীরাম’ ধ্বনি তুলে সাম্প্রদায়িক উসকানিমূলক বার্তা ছড়ানোর প্রতিবাদে দেশের ৪৯ জন বরেণ্য ব্যক্তিত্ব প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বরাবর চিঠি দেন। এরপর তা নিয়ে দেশজুড়ে তোলপাড় শুরু হয়।সুধীর কুমার ওঝা অভিযোগ করেছেন, দেশে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির উন্নয়নে ব্যাঘাত ঘটানো এবং বহির্বিশ্বে দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করার চেষ্টা করেছেন এই ৪৯ জন নাগরিক। তিনি এই মামলায় সাক্ষী হিসেবে কঙ্গনা রনৌত, মধুর ভান্ডারকর, বিবেক অগ্নিহোত্রীর নাম উল্লেখ করেছেন। আদালত আগামী ৩ আগস্ট মামলার শুনানির দিন ধার্য করেছেন।

এবার জানা গেছে, অভিনেতা ও নির্মাতা কৌশিক সেন আর অনুরাগ কাশ্যপকে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছে। এরপর মোদিপন্থীদের কটাক্ষ করে অপর্ণা সেন বলেছেন, ‘এত ভয়! মাত্র ৪৯ জন চিঠি দিল, তাতেই দুটো প্রাণনাশের হুমকি চলে এল! আমার হাসি পাচ্ছে। তার মানে কোথাও গিয়ে তাদের আঁতে ঘা লেগেছে।’ সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘আমার বক্তব্য চিঠিতে স্পষ্ট করে বলেছি। তাতে কার আপত্তি হলো, কে কী বলল, তা নিয়ে আমার বিন্দুমাত্র মাথাব্যথা নেই। তারা আগে নিজেদের ঘর সামলাক।’

এদিকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে চিঠি পাঠিয়ে বিজেপি আর দলটির বিভিন্ন অঙ্গসংগঠনের রোষানলে পড়েছেন দেশের ৪৯ জন বরেণ্য ব্যক্তিত্ব। এর পর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে সমর্থন করে দেশের ৬১ জন বিশিষ্ট ব্যক্তি তাঁকে পাল্টা চিঠি দিয়েছেন। চিঠিতে স্বাক্ষর করেছেন পার্নো মিত্র, কাঞ্চনা মৈত্র, মিলন ভৌমিক, অভিনেতা বিশ্বজিৎ চট্টোপাধ্যায়, মধুর ভান্ডারকর, বিবেক অগ্নিহোত্রী, প্রসূন যোশী, সোনাল মানসিং, পণ্ডিত বিশ্বমোহন ভট্টর প্রমুখ।

তাঁদের মতে, ‘দেশের একতা ও সার্বভৌমত্ব নষ্ট করার জন্য এই চিঠি লিখেছেন দেশের ৪৯ জন “স্বঘোষিত অভিভাবক”। আন্তর্জাতিক মহলে সরকারের ভাবমূর্তি খারাপ করার উদ্দেশে তাঁরা কাজ করছেন।’ তাঁরা আরও লিখেছেন, ‘মাওবাদী হামলায় যখন মানুষের মৃত্যু হয়, সিআরপিএফ জওয়ানদের প্রাণ যায়, তখন তাঁরা চুপ থাকেন। সন্ত্রাসবাদী হামলায় কাশ্মীরে যখন রক্ত ঝরে, তখন তাঁরা মুখ খোলেন না। বিশ্ববিদ্যালয়ে যখন দেশবিরোধী স্লোগান উঠেছে, তখনো তাঁদের কিছু বলতে শোনা যায়নি।’

এ পরিস্থিতে কবি শঙ্খ ঘোষ এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘দেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে উদ্বিগ্ন হয়ে শুভ চিন্তাসম্পন্ন লোকজন চিঠিটা দিয়েছিলেন, সেটা অত্যন্ত স্বাভাবিক। তবে তার পালটা হিসেবে পরবর্তী সময়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে যে চিঠি গিয়েছে, তা পুরোপুরি রাজনৈতিক স্বার্থে। প্রথম চিঠিতে বাংলার যাঁরা সই করেছিলেন, তাঁরা তো শুধু পশ্চিমবঙ্গের সমস্যা নিয়ে কথা বলেননি, তাঁরা গোটা দেশে ঘটে চলা অনাচারের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন।’

গত শুক্রবার সকালে দেশের কিংবদন্তি সংগীতশিল্পী আশা ভোসলের টুইটারে লিখেছেন, ‘“দম মারো দম, বোলো সুবহ শাম, হরে কৃষ্ণ হরে রাম…” চিরনতুন সেই গান কি আর গাইতে পারব?’

সুত্র : প্রথম আলো।

Sunday, July 28, 2019

একমাত্র আল্লাহ ছারা কাউকে ভয় করি না - প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

স্টাপ রিপোর্টার :

‘একমাত্র আল্লাহ ছাড়া কাউকে ভয় করি না’ বলে মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘দেশি-বিদেশি চক্রান্তের বিরুদ্ধে সব সময় প্রস্তুত থাকতে হবে। স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি বা আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে যারা আমাদের সমর্থন দেয়নি, তাদের নানা রকম চক্রান্ত থাকবে। কিন্তু সেগুলো মোকাবেলা করার জন্য সবসময় আমাদের প্রস্তুত থাকতে হবে এবং প্রস্তুতি নিতেও হবে।

শনিবার দুপুরে স্পেশাল সিকিউরিটি ফোর্সের (এসএসএফ) ৩৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। -খবর বাসস’র

 

তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ক্ষুধা-দারিদ্র্য মুক্ত সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্নপূরণ করতে মৃত্যু ঝুঁকি নিয়ে দেশে ফিরে এসছি। শুধু এই একটা স্বপ্নপূরণে মৃত্যুকে হাতে নিয়ে ফিরে এসেছি।’

১৯৭৫ এর ১৫ আগস্ট ঘাতকদের হাতে স্বপরিবারে বঙ্গবন্ধু নিহত হওয়ার পর ১৯৮১ সালে মৃত্যুর ঝুঁকি নিয়ে দেশে ফিরে আসেন প্রধানমন্ত্রী।

 

সেই সময়ের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যেদিন বাংলাদেশের মাটিতে পা দিয়েছি, সেদিন থেকেই আমি আমার মৃত্যুকে হাতে নিয়ে আছি। বলতে গেলে মৃত্যুকে আলিঙ্গন করেই এসেছি। যে কোনো মুহূর্তে হয়তো আমাকে হত্যা করা হতে পারে, মারা যেতে পারি, সেটা জেনেই কিন্তু আমি এসেছি।’

 

তিনি বলেন, ‘জাতির পিতা স্বপ্ন দেখেছিলেন বাংলাদেশকে ঘিরে। এ দেশের মানুষকে ঘিরে। মানুষকে তিনি সুখী-সমৃদ্ধশালী করবেন। তাদের জীবন উন্নত করবেন। দুঃখ-দারিদ্র্যের হাত থেকে তাদের মুক্তি দেবেন। সেই চিন্তাটাই তিনি করেছিলেন। তার সেই স্বপ্ন পূরণ করা কর্তব্য হিসেবে আমি নিয়েছি।

 

 

Saturday, July 27, 2019

সজীব ওয়াজেদ জয় এর জন্মদিনে কেক কাটেন "জয় বাংলা তথ্য প্রযুক্তি লীগ"এর কেন্দ্রীয় কার্যালয়।

★শুভ জন্মদিন★

বাংলাদেশের সফল রাষ্ট নায়ক জননেত্রী শেখ হাসিনার সু-যোগ্য সন্তান, বাংলাদেশের ডিজিটালের জনক, বাংলাদেশে তথ্য প্রযুক্তির উদ্ভাবক, বাংলাদেশ সরকারের – ICT বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ে’র জন্মদিন।

সজীব ওয়াজেদ জয়ের জন্মদিনে-
“জয় বাংলা তথ্য প্রযুক্তি লীগ” এর কেন্দ্রীয় কমিটির আয়োজনে কেককাটা উনুষ্ঠান উনুষ্ঠিত হয়।

শিক্ষা-প্রযুক্তি-শক্তি
জয় বাংলা
জয় বঙ্গবন্ধু।

দর্শকের আলাদা আগ্রহ দেখছি: নুসরাত ফারিয়া

 

ভারতীয় ছবি বিবাহ অভিযান গতকাল আমদানির মাধ্যমে মুক্তি পেয়েছে বাংলাদেশে। ছবির নায়িকা নুসরাত ফারিয়া কথা বললেন ছবি ও নিজের ব্যস্ততা নিয়ে।

কলকাতায় কেমন সাড়া ছিল?
খুব ভালো। জুন মাসে শতাধিক প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পায় ছবিটি। এখনো চলছে।

‘বিবাহ অভিযান’ নিয়ে প্রত্যাশা কেমন?
প্রায় ৫০টি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পাচ্ছে। এই ছবির প্রতি হলমালিক থেকে শুরু করে দর্শকের আলাদা আগ্রহ দেখছি। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও ছবিটি নিয়ে আলোচনা আছে। তা ছাড়া কলকাতাতে ছবিটির ভালো আলোচনা হয়েছে, সেই প্রভাবও এখানে পড়বে।

আমদানির ছবি এখানকার দর্শক খুব দেখছেন না। এই ছবিতে বাংলাদেশের নায়িকা থাকার কারণে কি বাড়তি সুবিধা পাবে?
পেতে পারে। যেহেতু এই ছবিতে বাংলাদেশের নায়িকা আছেন, তাই দর্শকের আলাদা একটি আগ্রহ থাকবে। তা ছাড়া অঙ্কুশ-ফারিয়া জুটি নিয়ে দর্শকের আগ্রহ আছে। কারণ, আশিকি ছবিতে অঙ্কুশের সঙ্গেই চলচ্চিত্রে অভিষেক হয়েছিল আমার। সেই সময়ে ছবিটি আলোচিত হয়েছিল। প্রায় সাড়ে তিন বছর পর আমরা দুজন আবার একসঙ্গে অভিনয় করেছি বিবাহ অভিযান ছবিতে।

কলকাতায় ছবির প্রচারণায় সরব ছিলেন, বাংলাদেশে নেই কেন?
প্রচারণা চালাতে চাই। কিন্তু ছবিটির আমদানিকারকেরা আয়োজন সেভাবে করেননি। তারপরও বৃহস্পতিবার নয়টি টেলিভিশন চ্যানেলে প্রচার চালিয়েছি। আর এই কদিন আমার নিজের ফেসবুক পেজ থেকে ছবিটির প্রচার করেছি।

এখন কি সিনেমার চেয়ে বিজ্ঞাপন বেশি করছেন?
ঠিক তা নয়। সিনেমার শুটিংয়ের ফাঁকে ফাঁকে বিজ্ঞাপন করছি। এ বছর বিবাহ অভিযান করলাম। হাতে আছে শাহেন শাহ ও ঢাকা ২০৪০ নামে দুটি ছবি। তা ছাড়া বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে দর্শকের কাছে পৌঁছানোও গুরুত্বপূর্ণ।

‘ঢাকা ২০৪০’-এর খবর কী?
প্রথম ধাপের কাজ ১ জুলাই থেকে ১২ জুলাই পর্যন্ত করেছি। প্রায় ৪০ ভাগ কাজ শেষ। ঈদের পর থেকে দ্বিতীয় ধাপের কাজ শুরু হবে।

প্রিয়া সাহাকে আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ দিতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ

 

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে বাংলাদেশে সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যাতনের অভিযোগ করা প্রিয়া সাহাকে আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ না দিয়ে কোনো ধরনের আইনি প্রক্রিয়া শুরু না করতে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী বলেছেন- প্রিয়া সাহা কেন এমন কাজ করেছেন এ বিষয়ে তার আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ থাকা উচিত।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা হচ্ছে তার (প্রিয়া সাহা) বিরুদ্ধে তড়িঘড়ি করে ব্যবস্থা নয়। মার্কিন প্রেসিডেন্টের কাছে বাংলাদেশে ধর্মীয় সংখ্যালঘু নির্যাতন সম্পর্কে প্রিয়া সাহা যে নালিশ করেছেন, এ বিষয়ে তাকে আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ দিতে হবে। উনি কোন উদ্দেশ্যে এসব কথা বলেছেন তা জানতে হবে, এর পর তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এর আগে রোববার সকালে বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগে ঢাকায় দুটি ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পৃথক দুটি মামলা করা হয়েছে।

ঢাকার সিএমএম আদালতে একটি মামলা করেছেন সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী ও আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন। আর অপর মামলাটি করেছেন ঢাকা বারের আইনজীবী সমিতির বর্তমান কার্যকরী কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট মো. ইব্রাহিম খলিল।

প্রসঙ্গত গত ১৬ জুলাই ধর্মীয় নিপীড়নের শিকার ২৭ ব্যক্তির সঙ্গে বৈঠক করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। সেখানে ১৬ দেশের প্রতিনিধি অংশ নেন। বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক প্রিয়া সাহাও প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে কথা বলার সুযোগ পান।

বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের নেতা প্রিয়া সাহা মার্কিন প্রেসিডেন্টকে বলেন, আমি বাংলাদেশ থেকে এসেছি। বাংলাদেশে তিন কোটি ৭০ লাখ হিন্দু, বৌদ্ধ ও খ্রিস্টান নিখোঁজ রয়েছেন। দয়া করে আমাদের লোকজনকে সহায়তা করুন। আমরা আমাদের দেশে থাকতে চাই।

এর পর তিনি বলেন, এখন সেখানে এক কোটি ৮০ লাখ সংখ্যালঘু রয়েছে। আমরা আমাদের বাড়িঘর খুইয়েছি। তারা আমাদের বাড়িঘর পুড়িয়ে দিয়েছে, তারা আমাদের ভূমি দখল করে নিয়েছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত কোনো বিচার পাইনি।

ভিডিওতে দেখা গেছে, একপর্যায়ে ট্রাম্প নিজেই সহানুভূতিশীল হয়ে ওই নারীর সঙ্গে হাত মেলান।

কারা এমন নিপীড়ন চালাচ্ছে? ট্রাম্পের এমন প্রশ্নের জবাবে প্রিয়া সাহা বলেন, ‘দেশটির মৌলবাদীরা এসব করছে। তারা সবসময় রাজনৈতিক আশ্রয় পাচ্ছে।’

প্রিয়া সাহার দেয়া বক্তব্যের সমালোচনা করে বর্তমান সরকারের আমলে বাংলাদেশের ধর্মীয় সম্প্রীতির বহু উদাহরণ সোশ্যাল মিডিয়ায় তুলে ধরছেন নেটিজেনরা।

‘৭১-এর চেতনায় গঠিত যে দেশে সব ধর্মের নাগরিক সমান অধিকারে সহাবস্থান করে বিশ্বে অসাম্প্রদায়িকতার মডেল হিসেবে পরিণত হয়েছে, সেই দেশ নিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্টের কাছে প্রিয়া সাহার এমন বক্তব্য কখনই মেনে নেয়ার মতো নয় বলেও অভিমত দিচ্ছেন সচেতনরা।

ফিরলেন মুশফিকও

 

৩১৫ রানের বড় লক্ষ্য পেরোতে দুর্দান্ত একটা শুরু দরকার ছিল বাংলাদেশের। আর সেটি পেতে রানের ফোয়ারা প্রত্যাশিত ছিল তামিম ইকবালের ব্যাটে। সে আশায় গুঁড়ে বালি প্রথম ওভারের পঞ্চম বলেই। তামিমকে যে ইয়র্কারটা দিলেন লাসিথ মালিঙ্গা, সেটা ঠেকানোর সাধ্য বিশ্বের খুব কম ব্যাটসম্যানেরই আছে। ভূপাতিত তামিম পরিষ্কার বোল্ড।

শূন্য রানে বাংলাদেশ অধিনায়ককে ফেরানোর পর মালিঙ্গার দ্বিতীয় শিকার সৌম্য সরকার। এবারও সেই মৃত্যুবাণ ইয়র্কার। আগের বেশ কয়েকটা দারুণ ফুটওয়ার্কে সামলে নিয়েছিলেন, কিন্তু এটা আর পারলেন না। ২২ বলে ১৫ রান করা সৌম্যর মিডল স্টাম্প ছত্রখান! প্রস্তুতি ম্যাচে তিনে দারুণ ব্যাটিং করা মিঠুন ফিরে গেছেন এর আগেই, ২১ বলে ১০ রান করে নুয়ান প্রদীপের বলে এল্বিডব্লু হয়ে। রিভিউ নেওয়ার দরকার ছিল না, তবু নিলেন এবং সেটা নষ্ট হলো। সৌম্যর পরে গেছেন মাহমুদউল্লাহ, ৩ রান করে, লাহিরু কুমারার বলে স্লিপের ওপর দিয়ে উচ্চাবিলাসী শট খেলতে গিয়ে ক্যাচ দিয়েছেন থার্ড ম্যানে। ৩৯ রানে ৪ উইকেট নেই!

ব্যাটিং বিপর্যয়ের পর বাংলাদেশকে ম্যাচে ফিরিয়েছেন সাব্বির রহমান–মুশফিকুর রহিম। দুজনের জুটিতে পথ খোঁজার চেষ্টা করেছে। সাব্বিরের আউট। বাংলাদেশ, ২৯ ওভারে ৫ উইকেটে রান ১৫৩ । বিশ্বকাপে খুব একটা ম্যাচ খেলার সুযোগ পাননি সাব্বির। পঞ্চম উইকেটে দুজনের জুটি হয়েছে ১১১ রান। এই জুটি আরও লম্বা বাংলাদেশের আশা উজ্জ্বল হতো। সেটি হয়নি সাব্বির ৬০ রানে আউট হওয়ায়। আশার প্রদীপ হয়ে ওঠা মুশফিকও ফিরেছেন ।

৭০ বছরে যাদের হাতে নৌকার হাল

 

উপমহাদেশের প্রাচীন এবং ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। আজ ২৩ জুন ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী দলটির। গণতান্ত্রিকভাবে জন্ম নেয়া মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্বদানকারী এই দল উপমহাদেশের রাজনীতিতে গত সাত দশক ধরে অবিচ্ছেদ্য সত্তা হিসেবে নিজেদের অপরিহার্যতা প্রমাণ করেছে। এ দেশের প্রতিটি আন্দোলন-সংগ্রামে দেশের ঐতিহ্যবাহী প্রচীনতম রাজনৈতিক সংগঠন আওয়ামী লীগের ভূমিকা প্রত্যুজ্জ্বল। আওয়ামী লীগ মানেই বাঙালি জাতীয়তাবাদের মূলধারা, সংগ্রামী মানুষের প্রতিচ্ছবি। আওয়ামী লীগ জাতির অর্জন, সমৃদ্ধি আর সম্ভাবনার পথ। অতীতের মতো বাংলাদেশের ভবিষ্যতও আওয়ামী লীগের সঙ্গেই যুক্ত।

৪৭-এর দেশ বিভাগের পর ১৯৪৯ সালে জন্ম হয় আওয়ামী লীগের। ৫২-র ভাষা আন্দোলন, ৬২-র ছাত্র আন্দোলন, ৬৬-র ছয় দফা, ৬৯-এর গণঅভ্যুত্থান, ৭০-এর যুগান্তকারী নির্বাচন সবখানেই সরব উপস্থিতির নাম বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। ১৯৭১ সালের মহান স্বাধীনতা অর্জন হয় আওয়ামী লীগের হাত ধরেই। কিন্তু জন্মের পর থেকে বঞ্চিতের অধিকার প্রতিষ্ঠায় বাধাভাঙা গতিতে এগিয়ে চলার মাঝে হঠাৎ ছন্দপতন ঘটে নৌকার গতিতে। দুই দশক ধরে পরাজিত কুচক্রীর দল ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট সপরিবারে হত্যা করে নৌকার অদম্য মাঝি ও বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। ১৯৪৯ সালে জন্ম থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক সেই আদর্শের নৌকার প্রধান দুটি পদ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে শক্ত হাতে হাল ধরেছেন দলের নিবেদিতরা।

১৯৪৯ সালে দেশের প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহী দল আওয়ামী লীগের যাত্রা শুরু। একই বছরের ২৩ জুন পুরান ঢাকার কেএম দাস লেনের ঐতিহাসিক রোজ গার্ডেনে ততকালীন পাকিস্তানের প্রথম ও প্রধান বিরোধী দল হিসেবে পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগ প্রতিষ্ঠা লাভ করে। প্রথম কাউন্সিলে মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী এবং শামসুল হককে দলের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়। তখন তরুণ নেতা শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন কারাগারে বন্দি। বন্দি অবস্থায় তাকে সর্বসম্মতিক্রমে প্রথম কমিটির যুগ্ম সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়। ১৯৫৩ সালে ময়মনসিংহে দলের দ্বিতীয় কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়। এতে মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী সভাপতি এবং শেখ মুজিবুর রহমান সাধারণ সম্পাদক হন।

১৯৫৫ সালের ২১-২৩ অক্টোবর ঢাকার সদরঘাটের রূপমহল সিনেমা হলে দলের তৃতীয় কাউন্সিল অধিবেশনে আওয়ামী লীগ অসাম্প্রদায়িক সংগঠনে পরিণত হয়। ‘মুসলিম’ শব্দটি বাদ দিয়ে দলের নতুন নামকরণ হয় পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী লীগ। পরে কাউন্সিল অধিবেশনে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে মওলানা ভাসানী ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব বহাল থাকেন। ৫৭ সালে কাগমারী সম্মেলনে দলের আন্তর্জাতিক নীতির প্রশ্নে সোহরাওয়ার্দী-ভাসানীর মতপার্থক্যের কারণে প্রথমবারের মতো আওয়ামী লীগ ভেঙে যায়। ভাসানীর নেতৃত্বে গঠিত হয় ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ)। আর মূল দল আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হন মওলানা আবদুর রশীদ তর্কবাগীশ ও সাধারণ সম্পাদক শেখ মুজিবুর রহমান বহাল থাকেন। ১৯৫৮ সালে পাকিস্তানে সামরিক শাসন জারি হলে আওয়ামী লীগের কর্মকাণ্ড স্থগিত করা হয়। ১৯৬৪ সালে দলটি পুনরুজ্জীবিত করা হয়। এতে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে তর্কবাগীশ ও শেখ মুজিবুর রহমান অপরিবর্তিত থাকেন।

১৯৬৬ সালের কাউন্সিলে দলের সভাপতি পদে নির্বাচিত হন শেখ মুজিবুর রহমান। তার সঙ্গে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন তাজউদ্দীন আহমদ। এর পরে ১৯৬৮ ও ১৯৭০ সালের কাউন্সিলে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক অপরিবর্তিত থাকেন। এই কমিটির মাধ্যমেই পরিচালিত হয় মহান মুক্তিযুদ্ধ। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর ১৯৭২ সালে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রথম কাউন্সিলে সভাপতি হন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন প্রয়াত রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমান।

১৯৭৪ সালে বঙ্গবন্ধু স্বেচ্ছায় সভাপতির পদ ছেড়ে দিলে সভাপতির দায়িত্ব দেয়া হয় পঁচাত্তরে কারাগারে ঘাতকদের হাতে নিহত জাতীয় নেতাদের অন্যতম এ এইচ এম কামারুজ্জামানকে। সাধারণ সম্পাদক পদে বহাল থাকেন মো. জিল্লুর রহমান। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট আসে আওয়ামী লীগের ওপর মরণাঘাত। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর রাজনৈতিক পটপরিবর্তন হলে আওয়ামী লীগের রাজনীতি আবারো স্থগিত করা হয়। ১৯৭৬ সালে ঘরোয়া রাজনীতি চালু হলে আওয়ামী লীগকেও পুনরুজ্জীবিত করা হয়। এতে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক করা হয় যথাক্রমে মহিউদ্দিন আহমেদ ও বর্তমান সংসদের উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরীকে। ১৯৭৭ সালে এই কমিটি ভেঙে করা হয় আহবায়ক কমিটি। এতে দলের আহবায়ক করা হয় সৈয়দা জোহরা তাজউদ্দীনকে। ১৯৭৮ সালের কাউন্সিলে দলের সভাপতি করা হয় আবদুল মালেক উকিলকে এবং সাধারণ সম্পাদক হন আব্দুর রাজ্জাক।

এরপরই শুরু হয় আওয়ামী লীগের উত্থানপর্ব, উপমহাদেশের বৃহত্তম রাজনৈতিক দল হিসেবে গড়ে তোলার মূল প্রক্রিয়া। সঠিক নেতৃত্বের অভাবে দলের মধ্যে সমস্যা দেখা দিলে নির্বাসনে থাকা বঙ্গবন্ধুকন্যা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে দেশে ফিরিয়ে আনা হয় নৌকা ও দেশের হাল ধরতে। দেশে ফেরার আগেই ১৯৮১ সালের কাউন্সিলে শেখ হাসিনাকে আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত করা হয়। এরপর কাউন্সিল অধিবেশন ১৯৮৭ সালে সভাপতি শেখ হাসিনা, সাধারণ সম্পাদক হন বেগম সাজেদা চৌধুরী। ১৯৯২ আবারো সভাপতি শেখ হাসিনা নির্বাচিত হন। আর সাধারণ সম্পাদক হন জিল্লুর রহমান।

১৯৯৭ কাউন্সিল অধিবেশনে মাধ্যমে সভাপতি শেখ হাসিনা, সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান নির্বাচিত হন। এরপর ২০০২ সভাপতি শেখ হাসিনা, সাধারণ সম্পাদক হন মো. আব্দুল জলিল। ২০০৯ ও ২০১২ সালে পুনরায় সভাপতি শেখ হাসিনা ও সাধারণ সম্পাদক হন সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। সর্বশেষ ২০১৬ থেকে বর্তমান সভাপতি শেখ হাসিনা ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন ওবায়দুল কাদের। যাদের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ জনগণের দলে পরিনত হয়েছে।

দুর্নীতি মুক্ত দল গঠনে কাজ চলছে: ওবায়দুল কাদের

 

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, দলকে দুর্নীতির ছায়া থেকে দূরে রেখে ঢেলে সাজানো হচ্ছে। শনিবার দুপুরে ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির কার্যালয়ে এ কথা বলেন তিনি।

কাদের বলেন, আওয়ামী লীগের ৮০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপনে সার্বিক প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।

‘বিএনপির আন্দোলনের হুমকি দেশবাসীর কাছে হাস্যকর’

 

বিএনপি নেতারা দুইদিন পরপর অভিযোগ করেন উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, খালেদা জিয়া খেতে পারছেন না, প্রাণহানির শঙ্কা রয়েছে। পরে খবর নিয়ে জানা গেছে খালেদা জিয়ার জিহ্বায় কামড় লাগায় কয়েকদিন খেতে পারেননি। আমার এমন সমস্যা হলে আমিওতো খেতে পারবো না। এতে প্রাণহানির কি আছে।

তিনি বলেন, খালেদার মুক্তির জন্য বিএনপি এসব আন্দোলনের হুমকি দেশবাসীর কাছে হাস্যকরে পরিণত হয়েছে। আমরা আগেও বলেছি এখনো বলছি, আইনি প্রক্রিয়া ছাড়া তাদের নেত্রীর মুক্তি সম্ভব নয়।

শুক্রবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে বাংলাদেশ স্বাধীনতা পরিষদ আয়োজিত ‘শেখ হাসিনার কারাবন্দি দিবস’ উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।

‘আওয়ামী লীগের আন্দোলনের কারণেই ১/১১ সময় কারাগার থেকে খালেদা জিয়ার মুক্তি মিলেছিল। তবে এবার খালেদা জিয়াকে কারাগার থেকে মুক্ত করতে আইনি প্রক্রিয়ার বিকল্প নেই।’

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, বিএনপি নেতা-কর্মীরা সরকারের সব উন্নয়নের মধ্যেই ‘কিন্তু’ খুঁজতে চায়। তারা নাকি দেখতে পায় দেশে উন্নয়নের নামে একশ্রেণির মানুষের পকেট ভারি হচ্ছে। আমরা দেখেছি বিএনপির শাসনে যখন দেশ দুর্নীতিতে পরপর পাঁচবার চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল। বিশ্বব্যাংক তাদের ৫টি প্রকল্প থেকে অর্থ ফিরিয়ে নিয়েছিল। তারা নিজেরা দুর্নীতিগ্রস্ত ছিল বলেই অন্যদের কাজের মধ্যে ‘কিন্তু’ খোঁজার চেষ্টা করে।

তিনি বলেন, বিএনপির মহাসচি মির্জা ফখরুল ইসলাম বরিশালের এক সমাবেশে বলেছেন, দেশে নাকি সুষ্ঠু নির্বাচন হলে আওয়ামী লীগ একটি ভোটও পাবে না। একটি দলের মহাসচিব হয়ে কিভাবে এমন মন্তব্য করেন আমার বুঝে আসে না। কোনো মানসিক রোগীও বলতে পারে না একটি ভোটও আওয়ামী লীগ পাবে না। আসলে তাদের দলকে তারা কোন দিকে নিয়ে যেতে চায় তারাই ভালো জানে।

এ ছাড়াও দেশের উন্নয়ন নিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, দেশের উন্নয়ন কিছু মানুষ মেনে নিতে পারছেন না। এডিবি স্বীকার করতে বাধ্য হয়েছে গত অর্থবছরে দেশের প্রবৃদ্ধি ছিল ৮ দশমিক ১ শতাংশ, যেখানে আমাদের দাবি ৮ দশমিক ১৬ শতাংশ। দেশের মানুষের ক্রয় ক্ষমতা বেড়েছে, বিদ্যুতের ব্যবহার ৪০ শতাংশ থেকে এখন ৯৫ শতাংশ, মাথাপিছু আয় ৬০০ ডলার থেকে এখন দুই হাজার ডলার হয়েছে।

বাংলাদেশ স্বাধীনতা পরিষদের উপদেষ্টা জাহাঙ্গীর আলম খানের সভাপতিত্বে আয়োজিত আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, আওয়ামী লীগ নেতা আক্তার হোসেন, এম এ করিম প্রমুখ।

ভোটে ড. কামাল আ’লীগের পক্ষে কাজ করেছেন: নাসিম

 

একাদশ সংসদ নির্বাচনে ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেন আওয়ামী লীগের পক্ষে কাজ করেছেন বলে দাবি করেছেন ক্ষমতাসীন দলটির অন্যতম নীতি-নির্ধারক ও সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম।

তিনি বলেছেন, বিএনপি বারবার ভুল করেছে। ২০১৮ সালের নির্বাচনে বিএনপি লোক ভাড়া করল। কাকে করলেন? আওয়ামী লীগের পরিত্যক্ত নেতা ড. কামাল হোসেনকে। ড. কামাল হোসেনের মত একজন ব্যর্থ চক্রান্তকারী মানুষকে ভাড়া করে নির্বাচনে আওয়ামী লীগের সামনে দাঁড় করাল।

‘জিততে পারবেন? জিততে পারবেন না। তিনি (ড. কামাল হোসেন) কি করলেন? আওয়ামী লীগের পক্ষে কাজ করে মাঠ খালি করে দিলেন। আমরা ফাঁকা মাঠে গোল দিলাম। এই হচ্ছে ভাড়াটিয়া নেতার উপহার। ওরা ভাড়া করে ওদের জন্য, কাজ করল আমাদের জন্য।’

মঙ্গলবার জাতীয় সংসদে প্রস্তাবিত ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে মোহাম্মদ নাসিম এসব কথা বলেন।

মোহাম্মদ নাসিম বলেন, নির্বাচনে ড. কামাল হোসেন সমস্ত মাঠ খালি করে দিলেন। আমার নিজের নির্বাচনী এলাকায় প্রতিদ্বন্দ্বী খুঁজে পাইনা। একজন গায়িকা দিয়েছিলেন, সেই গায়িকাকেও খুঁজে পাওয়া গেল না, গানও পাওয়া গেল না।

‘ফাঁকা মাঠা গোল দিয়েছি। খেলা যদি ফাঁকা মাঠে হয়, কি করব? দুই দিকে গোল পোস্ট থাকে। আমাদের নেত্রী শেখ হাসিনা থাকেন ফরওয়ার্ডে, আরেক দল মাঝপথ থেকে পালিয়ে গেল। তখন আমরা গোল তো দেবোই, বারবার গোল দেবো।’

জাপার চেয়ারম্যান জিএম কাদের

 

এখন থেকে জিএম কাদের জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান। বৃহস্পতিবার দুপুরে জাতীয় পার্টির বনানী কার্যালয়ে দলের মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন।

তিনি বলেন, ‘হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের পূর্বের ঘোষণা অনুযায়ী জিএম কাদের সাহেব আজকে থেকে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান। আপনারা জানেন, এরশাদ জীবিত থাকা অবস্থায় ২০ এর ১/ক ধারা অনুযায়ী উনার অবর্তমানে জিএম কাদেরকে পার্টির চেয়ারম্যান ঘোষণা করে গেছেন।’

এ সময় জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জিএম কাদের, দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য ফিরোজ রশীদ, সৈয়দ আবু হোসেন বাবলাসহ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে, রোববার (১৪ জুলাই) ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। তার বয়স হয়েছিল ৯০ বছর। তিনি রক্তে সংক্রমণসহ লিভার জটিলতায় ভুগছিলেন।

গত ৪ মে এক সাংগঠনিক নির্দেশে জাতীয় পার্টির তৎকালীন চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছিলেন, ‘আমি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এই মর্মে ঘোষণা করছি যে, আমার অবর্তমানে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের দায়িত্ব আমার ছোট ভাই গোলাম মোহাম্মদ কাদের পালন করবেন। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে সর্বাত্মক সহযোগিতার জন্য আমি জাতীয় পার্টির সকল স্তরের নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি এবং নির্দেশ প্রদান করছি।’

বন্যায় ২ সপ্তাহে ১০১ জনের মৃত্যু

 

দেশের বিভিন্ন স্থানের চলমান বন্যায় দুই সপ্তাহে পানিবাহিত রোগসহ বিভিন্ন কারণে প্রায় শতাধিক মানুষ মারা গেছেন। এরই মধ্যে সাড়ে ১১ হাজার মানুষ ডায়রিয়াসহ পানিবাহিত বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়েছেন। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, টানা বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে ২৮ জেলায় ৩০ লাখের বেশি মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

এ বিষয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেল্থ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের সহকারী পরিচালক ডা. আয়শা আক্তার জানান, ১০ই জুলাই থেকে দুর্গত এলাকায় বিভিন্ন কারণে ১০১ জন মারা গেছেন। পানিবাহিত রোগ, সাপে কাটা, পানিতে ডুবেসহ বিভিন্ন কারণে তারা মারা গেছেন। এর মধ্যে জামালপুরে সর্বোচ্চ ৩৩ জন, নেত্রকোণায় ১৬ জন, চট্টগ্রামে ১ জন, কক্সবাজারে ১ জন, বগুড়ায় ৪ জন, গাইবান্ধায় ১৭ জন, লালমনিরহাটে ৪ জন, নীলফামারীতে ২ জন, সুনামগঞ্জে ৫ জন, কুড়িগ্রামে ৫ জন, শেরপুর, সিরাজগঞ্জ ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ২ জন করে, টাঙ্গাইলে ৭ জন এবং ফরিদপুরে ১ জন মারা গেছে। তাদের মধ্যে পানিতে ডুবে ৮৩ জনের, বজ্রপাতে ৭ জনের, সাপের কামড়ে ৮ জনের, শ্বাসতন্ত্রের সংক্রমণে ১ জন এবং অন্যান্য কারণে ২ জনের মৃত্যু হয়েছে।

জনপ্রিয়তা বেড়েছে প্রধানমন্ত্রীর, সবচেয়ে সফল কাদের

 

জনপ্রিয়তা বেড়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার। বিগত দুই মেয়াদের তুলনায় বর্তমান সরকারের প্রথম ছয় মাসে প্রধানমন্ত্রীর কর্মকাণ্ডে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন দেশের ৮০ শতাংশ মানুষ। একই সঙ্গে দেশের ৭৩ শতাংশ মানুষ সরকারের সার্বিক কর্মকাণ্ডে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন। এর পাশাপাশি আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরকে সবচেয়ে সফল মন্ত্রী মনে করছেন তারা। সরকারের সার্বিক বিষয়ে সন্তোষ প্রকাশ করলেও ধর্ষণসহ বিভিন্ন অপরাধ বৃদ্ধি, আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি ও বিচারিক প্রক্রিয়ার সীমাবদ্ধতা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন সাধারণ মানুষ।

এই তথ্য জানিয়েছে বেসরকারি গবেষণা সংস্থা কলরেডি। বৃহস্পতিবার সকালে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর-রুনি মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলনে নিজেদের জরিপের প্রতিবেদন প্রকাশ করে কলরেডি। এতে বক্তৃতা করেন সংস্থাটির মূখ্য গবেষক অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী অধ্যাপক ড. আবুল হাসনাৎ মিল্টন।

জরিপের ফল তুলে ধরে তিনি বলেন, সরকারের ছয় মাস পূর্তি উপলক্ষে গত ৮ থেকে ১৪ জুলাই পর্যন্ত টেলিফোনের মাধ্যমে এক হাজার ২৫৫ জনের কাছ থেকে মতামত নিয়ে এ জরিপ পরিচালনা করা হয়। জরিপে অংশ নেয়াদের মধ্যে ৭৬ শতাংশ পুরুষ এবং ২৪ শতাংশ নারী।

জরিপের ফল অনুযায়ী, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিগত ছয় মাসের কর্মকাণ্ডে সন্তোষ প্রকাশ করেছে ৭৯ দশমিক ৭৫ শতাংশ। এর আগের জরিপে এ হার ৭০ শতাংশ। সরকারের কর্মকাণ্ডে গড়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন ৭৩ দশমিক ০৫ শতাংশ মানুষ। ২৫ দশমিক ৮২ শতাংশ মানুষ মনে করছেন বিগত দুই মেয়াদের তুলনায় এ ছয় মাসে অনেক ভালো কাজ করেছেন প্রধানমন্ত্রী। ২৯ দশমিক ১৬ শতাংশ মানুষ মনে করছেন ভালো করছে এ সরকার। এর বিপরিতে সরকারের কর্মকাণ্ডে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন ৫ দশমিক ৮২ শতাংশ মানুষ। অধিকমাত্রায় অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন ৪ দশমিক ৮৬ শতাংশ মানুষ। বিগত দুই মেয়াদের মতোই গত মাসে সরকারের কর্মকাণ্ড একই রকম রয়েছে বলে মনে করেন ৩৪ দশমিক ৩৪ শতাংশ মানুষ।

জরিপের ফল অনুযায়ী, গত ছয় মাসে সরকারের গৃহীত বিভিন্ন মেগা প্রকল্প, রাস্তাঘাট উন্নয়ন ও শিক্ষাক্ষেত্রে উন্নয়নের বিষয়ে জরিপে অংশগ্রহণকারীরা প্রশংসা করছেন। মেগা প্রকল্পের বিষয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন ২২ দশমিক ২৩ শতাংশ, রাস্তা ও যোগাযোগ খাতের উন্নয়নে ২০ দশমিক ৪৯ শতাংশ এবং শিক্ষাক্ষেত্রে উন্নয়নে ৯ দশমিক ৭১ শতাংশ মানুষ। অন্যদিকে, ধর্ষণসহ বিভিন্ন অপরাধ বৃদ্ধি, আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি ও বিচারিক প্রক্রিয়ার সীমাবদ্ধতা নিয়েও উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন তারা। ধর্ষণ ও আইন-শৃঙ্খলার বিষয়ে উদ্বেগ করেছেন ১৫ দশমিক ৭৬ শতাংশ, বিচারিক প্রক্রিয়ার সীমাবদ্ধতা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন ১১ দশমিক ৫০ শতাংশ অংশগ্রহণকারী।

জরিপে অংশগ্রহণকারীরা এর বাইরেও অবকাঠামোগত উন্নয়ন, দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ, দুর্নীতি প্রতিরোধ, বেকারত্ব, বিদ্যুৎ, গণতন্ত্র, রোহিঙ্গার বিষয়েও উদ্বেগ প্রকাশ করেন। জরিপে অংশগগ্রহণকারীদের মধ্যে ২১ দশমিক ৬৮ শতাংশ মানুষ সরকারের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ মনে করছেন নির্ধারিত সময়ে মেগা প্রকল্পের বাস্তবায়ন। এর বাইরে ১৫ দশমিক ২৫ শতাংশ অপরাধ নিয়ন্ত্রণ, ৭.১৯ শতাংশ অবকাঠামোগত উন্নয়ন, ৫.০১ শতাংশ দুর্নীতি প্রতিরোধকে সরকারের চ্যালেঞ্জ মনে করছেন।

এদিকে জরিপের অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে সর্বোচ্চ ৪১ শতাংশ বিগত ছয় মাসের কর্মকাণ্ডের ভিত্তিতে সবচেয়ে সফল মন্ত্রী হিসেবে মনে করছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরকে। আর ২৯ শতাংশ সফল মন্ত্রী মনে করছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনিকে। এর বাইরেও আরও প্রায় ২০ জন মন্ত্রীর নাম জরিপে উঠে এসেছে। অধ্যাপক ড. আবুল হাসনাৎ মিল্টন আরও জানান, নির্বাচনের আগে ও পরপর দুটি জরিপ পরিচালনা করেছিল কলরেডি। সরকার এ জরিপের ফল গুরুত্বের সঙ্গে নেবে বলে বলে আশা করে তিনি বলে, জনগণের উদ্বেগের বিষয়গুলো সরকার নিরসনের চেষ্টা করবেন।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অফ প্রফেশনালসের ফ্যাকাল্টি কাজী আহমেদ পারভেজ ও কলরেডির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আজাদ আবুল কালাম।

ট্রাম্পকে দেয়া নালিশ প্রসঙ্গে যা বললেন প্রিয়া সাহা

 

মার্কিন প্রেসিডেন্টের কাছে বাংলাদেশের সংখ্যালঘু পরিস্থিতি নিয়ে নালিশ করে সমালোচিত বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক প্রিয়া সাহা তার অবস্থান ব্যক্ত করে বক্তব্য দিয়েছেন।

নিজের পরিচালিত প্রতিষ্ঠান ‘শার’ এর ইউটিউব চ্যানেলে ৩৫ মিনিটের একটি ভিডিও বার্তায় প্রিয়া সাহা ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে তার অভিযোগের ব্যাখ্যা দিয়েছেন।

প্রিয়া সাহা জানান, তিনি ভালো নেই, তার পরিবার হুমকিতে আছেন।

বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের প্রতিনিধি হয়ে যুক্তরাষ্ট্রে যাননি বলে জানান তিনি।

ট্রাম্পকে বলা বাংলাদেশের সংখ্যালঘু জনসংখ্যা হারিয়ে যাওয়ার বিষয়ে তিনি তার পরিসংখ্যান উপস্থাপন করেন।

ভিডিওতে ওপাশ থেকে লাইভে এক সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

ভিডিও বার্তায় প্রিয়া সাহা জানান, গত মাসের ১৪ তারিখে যুক্তরাষ্ট্র সরকারের পক্ষ থেকে তাকে ইমেইল করা হয়। সেই ইমেইল পেয়ে তিনি ১৫ জুলাই যুক্তরাষ্ট্রে যান।

কেমন আছেন সেই প্রশ্নে প্রিয়া সাহা বলেন, ‘আমি ভালো নেই। আপনারা দেশে আছেন, আপনারা দেখতে পাচ্ছেন পরিস্থিতি কোথায় যাচ্ছে। আমার পরিবার ভীষণ সমস্যায় আছে। গতকাল আমার বাসার তালা ভাঙতে চেষ্টা করা হয়েছে। বাসার সামনে মিছিল করা হয়েছে। হুমকি দেয়া হয়েছে। সবচেয়ে বড় ব্যাপার হলো আমার পরিবারের ছবি পত্রিকায় ছাপা হয়েছে। কথা বলেছি আমি, তারা আমার ছবি ছাপাতে পারতো। এর মাধ্যমে পরিবারের সবার জীবনকে বিপন্ন করা হয়েছে। আমার পরিবারের কেউ আমার কাজের সাথে কোনোভাবেই যুক্ত নয়।’

ভিডিও বার্তায় তিনি নির্বাচনপরবর্তী সহিংসতায় সংখ্যালঘু পরিবারের ওপর নির্যাতন করা হয় তা উল্লেখ করেন।

ট্রাম্পকে আপনি কেন এমন অভিযোগ দিলেন সেই প্রশ্নের জবাবে প্রিয়া বলেন, ‘এই কথাগুলো মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কথা। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনা ২০০১ সালে যখন সংখ্যালঘু সম্প্রদায়েরও ওপর নির্বাচনোত্তর চরম নির্যাতন চলছিল ৯৪ দিন ধরে। আজকের প্রধানমন্ত্রী তখন বিরোধীদলীয় নেত্রী। তিনি বাংলাদেশের সংখ্যালঘুদের রক্ষা করার জন্য সারা পৃথিবীতে ঘুরেছেন। সমস্ত জায়গায় বক্তব্য দিয়েছেন। আমি তার কথায় অনুপ্রাণিত হয়ে, তার অনুসরণ করে এসব কথা বলেছি। যেকোনো অন্যায়ের বিরুদ্ধে যেকোনো জায়গায় বলা যায়, এটা আমি তার কাছে শিখেছি।’

ট্রাম্পকে বলা তার ৩৭ মিলিয়ন গুম হয়ে যাওয়া পরিসংখ্যান নিয়ে প্রশ্ন করেন সাংবাদিক।

এ বিষয়ে প্রিয়া যে ব্যাখ্যা দেন, ‘২০০১ সালের পরিসংখ্যান বইয়ের সংখ্যালঘু যে চাপ্টার রয়েছে সেখানে এ বিষয়গুলো লেখা রয়েছে। প্রতি বছর সরকার যে আদমশুমারি বের করে সেই রিপোর্ট অনুসারে দেশভাগের সময় জনসংখ্যা (সংখ্যালঘু) ছিল ২৯ দশমিক ৭ ভাগ। আর এখনকার সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের জনসংখ্যা হচ্ছে ৯ দশমিক ৭ ভাগ। এখন দেশের মোট জনসংখ্যা ১৮০ মিলিয়নের মতো। তো সেক্ষেত্রে জনসংখ্যা একইভাবে বৃদ্ধি পায়নি। ফলে আমি ক্রমাগতভাবে হারিয়ে গেছে বলে যে সংখ্যা বলেছি সেটা মিলে যায়।’

তিনি আরও যোগ করেন, ‘সরকারের প্রকাশিত পরিসংখ্যান বইয়ের ওপর ভিত্তি করে অধ্যাপক আবুল বারকাত গবেষণা করেছেন। সেই গবেষণায় উনি দেখিয়েছেন, প্রতিদিন বাংলাদেশ থেকে ৬৩২ জন লোক হারিয়ে যাচ্ছে। আমি ২০১১ সালে স্যারের সঙ্গে সরাসরি কাজ করেছিলাম এ কারণে এ বিষয়ে অবহিত।’

তিনি উদাহরণ দেন, ‘আমার নিজের গ্রামের কথা বলেছি। সেখানে ২০০৪ সালে ৪০টি পরিবার ছিল। এখন ১৩টি পরিবার আছে। এই মানুষগুলো কোথায় গেল, কোথায় আছে সেটা রাষ্ট্রের দেখার কথা।’

তিনি বলেন, আমি রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ দিতে চাইনি। পিরোজপুরের আমার গ্রামে গেলে হারিয়ে যাওয়া পরিবারের বসতভিটা দেখতে পাবেন।

এমন জবাবে সাংবাদিক বলেন, বাংলাদেশ থেকে সংখ্যালঘুরা হারিয়ে যাচ্ছে এমন সংবাদ তো কোনো মিডিয়ায় প্রচার করতে দেখিনি। কোনো পত্রিকাতে এসেছে কিনা আমরা জানি না।

জবাবে প্রিয়া সাহা বলেন, এমন সংবাদ আপনারা নিয়মিত প্রচার করেছেন। গত মাসেও সাতক্ষীরা থেকে কয়েকটি পরিবার চলে গেছে সে সংক্রান্ত খবর অনেক পত্রপত্রিকায় এসেছে। দেশ থেকে কোনো পরিবার উচ্ছেদ গলে গণমাধ্যম নিয়মিতই সে খবর প্রকাশ করছে।

কেন ট্রাম্পের কাছে এসব পরিসংখ্যান তুলে ধরেছেন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মৌলবাদের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স ঘোষণা করেছেন। সেক্ষেত্রে আমাদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী পৃথিবীর মধ্যে সফলতা দেখিয়েছে। আমি চেয়েছি বা যে জন্য বলেছি, বাংলাদেশের সঙ্গে মার্কিন প্রশাসনও কাজ করে যাতে কোনোভাবেই মৌলবাদের উত্থান না ঘটে। তাই আমি বলেছি। সরকারের কাজটি শক্তিশালী করার জন্য এই কথাগুলো বলেছি।’

সরকার তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ‘সরকার যখন প্রকৃত সত্য জানতে পারবেন তখন আমার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিবে না বরং আমার পাশে দাঁড়িয়ে আমাকে সঙ্গে নিয়ে এই মৌলবাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করবে।’

তিনি বলেন, মুসলমান হিন্দুদের শত্রু না, মুসলমান সম্প্রদায়ের ৯৯.৯৯ শতাংশ মানুষই অসাম্প্রদায়িকতায় বিশ্বাস করে একসঙ্গে থাকে কিন্তু কিছু দুষ্টু লোক আছে যারা এই ঘটনা ঘটায়।’

ব্যারিস্টার সুমনের বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি

 

এবার সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমনের বিরুদ্ধে পৃথক আইনে মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছেন আরেক আইনজীবী। হিন্দু আইনজীবী পরিষদের সভাপতি এ আইনজীবীর নাম সুমন কুমার রায়।

ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে নিজেই বিষয়টি জানিয়েছেন। পরে মামলার প্রস্তুতির বিষয়টি তিনি নিশ্চিত করেন বলেন, পৃথক দুটি ধারায় এ মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

সুমন কুমার রায় বলেন, ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের অভিযোগে একটি এবং মানহানির অভিযোগে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দুটি মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছি। ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমনের বিরুদ্ধে দুই ধরনের অভিযোগ আনার সুযোগ আছে। একটি ২৯৫ (ক) ধারায়। অপরটি ফেসবুক লাইভে মানহানি করায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের সংশোধিত ধারায় অভিযোগ আনা হবে।

এ বিষয়ে ব্যারিস্টার সায়েদুল হক সুমন বলেন, ‘মামলা করা একটি সাংবিধানিক অধিকার। যে কেউ কারো বিরুদ্ধে মামলা করতে পারে। এটাই বাংলাদেশের নিয়ম হওয়া উচিত।’

এর আগে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করায় বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ও আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমনের করা মামলা খারিজ করে দিয়েছেন আদালত।

রোববার ঢাকা মহানগর হাকিম জিয়াউর রহমানের আদালতে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ও আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন।

পেনাল কোডের ১২৩ (এ), ১২৪ (এ) ও ৫০০ ধারায় মামলাটি আমলে নেয়ার জন্য ব্যারিস্টার সুমন আদালতে আবেদন করেন। আদালত বাদীর জবানবন্দি গ্রহণ করে পরে খারিজের আদেশ দেন।

এর আগে গত শুক্রবার (১৯ জুলাই) রাতে ফেসবুক লাইভে এসে মামলা করার ঘোষণা দিয়েছিলেন ব্যারিস্টার সুমন। সেদিন তিনি বলেন, ‘আমি তার বিরুদ্ধে অবশ্যই মামলা করব, আপনারা আমার পাশে থাকবেন।’

পার্লামেন্ট ভবনে সাপের তাড়া

 

নাইজেরিয়ার দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় একটি প্রাদেশিক পার্লামেন্ট ভবনে গত বৃহস্পতিবার সাপের তাড়ায় আইনপ্রণেতাদের ঊর্ধ্বশ্বাসে ছুটতে দেখা গেছে। ওনদো প্রদেশের আইনপ্রণেতাদের মুখপাত্র ওলুগবেঙ্গা ওমোলে বলেন, ‘আমরা যখন অধিবেশনের জন্য পার্লামেন্ট কক্ষে ঢুকি, দেখি, একটা বিরাট সাপ ভেতরে ঘুরে বেড়াচ্ছে। এরপর আইনপ্রণেতাদের মধ্যে হুড়োহুড়ি লেগে যায়। যদিও সবাই নিরাপদ রয়েছেন।’

সাপটি অধিবেশনকক্ষের ছাদ থেকে মেঝেতে আছড়ে পড়েছিল। পরে সাপটিকে মেরে ফেলা হয়। অর্থের অভাবে পার্লামেন্ট ভবনের সংস্কারকাজও ঠিকমতো হচ্ছে না।

সাপের কারণে আইনপ্রণেতাদের হট্টগোল। ছবি: নাইজেরিয়ার পার্লামেন্টসাপের কারণে আইনপ্রণেতাদের হট্টগোল। ছবি: নাইজেরিয়ার পার্লামেন্টনাইজেরিয়ার দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় একটি প্রাদেশিক পার্লামেন্ট ভবনে গত বৃহস্পতিবার সাপের তাড়ায় আইনপ্রণেতাদের ঊর্ধ্বশ্বাসে ছুটতে দেখা গেছে। ওনদো প্রদেশের আইনপ্রণেতাদের মুখপাত্র ওলুগবেঙ্গা ওমোলে বলেন, ‘আমরা যখন অধিবেশনের জন্য পার্লামেন্ট কক্ষে ঢুকি, দেখি, একটা বিরাট সাপ ভেতরে ঘুরে বেড়াচ্ছে। এরপর আইনপ্রণেতাদের মধ্যে হুড়োহুড়ি লেগে যায়। যদিও সবাই নিরাপদ রয়েছেন।’

সাপটি অধিবেশনকক্ষের ছাদ থেকে মেঝেতে আছড়ে পড়েছিল। পরে সাপটিকে মেরে ফেলা হয়। অর্থের অভাবে পার্লামেন্ট ভবনের সংস্কারকাজও ঠিকমতো হচ্ছে না।

ওমোলে বলেন, পার্লামেন্টের মতো গুরুত্বপূর্ণ স্থানও নিরাপদ নয় এখন। ওই ঘটনায় অধিবেশন অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত করা হয়েছে। পুরো সংস্কারকাজ শেষ না হলে এবং নিরাপত্তাব্যবস্থা জোরদার করা না হলে আইনপ্রণেতারা ফিরবেন না বলে ঘোষণা দিয়েছেন।

নাইজেরিয়ায় সাপের উপদ্রব বেশি হলেও পার্লামেন্ট ভবনে সাপ ঢুকে পড়ার ঘটনা এই প্রথম। এর আগে অবশ্য ইঁদুর ও অন্য সরীসৃপ ঢুকে পড়ার ঘটনা ঘটেছিল। তবে সাপটি কোন জাতের ছিল, তা জানা যায়নি।

আফ্রিকান জার্নাল অব মেডিসিন অ্যান্ড মেডিকেল সায়েন্সের তথ্যমতে, নাইজেরিয়ায় প্রতিবছর প্রতি লাখে ৫০০ লোক সাপের কামড়ে আক্রান্ত হয়। এদের মধ্যে প্রতি আটজনে একজন মারা যায়। অধিকাংশ লোক কৃষি, গৃহপালিত পশু চরানো কিংবা ঝোপঝাড়ে হাঁটাচলার সময় সাপের কামড় খায়। সাপে কাটা রোগীর মাত্র ১০ শতাংশকে চিকিৎসা দেওয়ার সক্ষমতা রয়েছে নাইজেরিয়ার হাসপাতালগুলোর।

নির্বাচনের খরচ দেওয়ার দাবিতে মোদিকে মমতার চিঠি

 

ভারতের নির্বাচনী সংস্কারের দাবি জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে চিঠি দিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। গতকাল বৃহস্পতিবার মোদিকে তিন পৃষ্ঠার ওই চিঠি দেন মমতা।

চিঠিতে মমতা বলেছেন, বিশ্বের ৬৫ দেশের মতো ভারত সরকারের উচিত নির্বাচনে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলকে অর্থের জোগান দেওয়া। এতে দুর্নীতি কমবে বলে আশা করেন তিনি। এই দাবি বিবেচনার জন্য প্রধানমন্ত্রীর প্রতি সর্বদলীয় বৈঠক ডাকারও আহ্বান জানান তিনি।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর চিঠিতে লিখেছেন, ‘দেশের সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি নিয়ে আপনার দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চাই। গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় দুর্নীতি ও অপরাধ রুখতে নির্বাচনী সংস্কার জরুরি হয়ে পড়েছে। যদিও বিষয়টি ২০১৪ এবং ২০১৯ সালের নির্বাচনে আমাদের দলীয় ইশতেহারে ছিল। বিশ্বের ৬৫টি দেশের মতো আমাদের দেশেও নির্বাচনে অর্থের ব্যবস্থা করা উচিত ভারত সরকারের।’

সেন্টার ফর মিডিয়া স্টাডিজ আয়োজিত ‘নির্বাচনী খরচ ২০১৯’ শীর্ষক একটি আলোচনা সভার কথা উল্লেখ করে মমতা চিঠিতে লেখেন, এবারের লোকসভা নির্বাচনই ছিল সবচেয়ে ব্যয়বহুল নির্বাচন। ২০১৪ সালের দ্বিগুণ খরচ হয়েছে এবারের নির্বাচনে। এই নির্বাচনে খরচ হয়েছে ৬০ হাজার কোটি রুপি বা ৮৬ লাখ মার্কিন বিলিয়ন ডলার। অবশ্য প্রকৃত খরচ এর চেয়ে বেশি হয়েছে। খরচের প্রবাহ এভাবে বাড়তে থাকলে ২০২৪ সালে ভারতের পরবর্তী নির্বাচনে খরচ ১ লাখ কোটি রুপি ছাড়িয়ে যাবে।

মমতা বলেন, নির্বাচনী খরচে রাশ টানা না হলে দুর্নীতি ঠেকানো যাবে না। নির্বাচন কমিশন প্রার্থীদের খরচের সীমা নির্ধারণ করে দিলেও তাতে কাজ হচ্ছে না। রাজনৈতিক দলের এই খরচের সীমা নেই। তাই বিশ্বের ৬৫টি দেশের মতো ভারতেও নির্বাচনী খরচের জোগান দিক ভারত সরকার।

চিঠিতে লেখা হয়, অপ্রত্যক্ষভাবে ৭৯টি দেশে নির্বাচনী খরচের জোগান দেয় সে দেশের সরকার। জার্মানি, ফ্রান্স, ব্রিটেন, জাপান, ইতালি, কানাডা, অস্ট্রেলিয়া, ডেনমার্ক, নেদারল্যান্ডস, স্পেন, সুইডেনের মতো দেশের রাজনৈতিক দলগুলো সরাসরি রাষ্ট্রের কাছ থেকে নির্বাচনী খরচ পায়। আবার উন্নয়নশীল দেশ আর্জেন্টিনা, মেক্সিকো, ব্রাজিল, হন্ডুরাস, কলম্বিয়াও রাষ্ট্রের কাছ থেকে সরাসরি আর্থিক সহযোগিতা পায়। তাই স্বচ্ছ নির্বাচন ও নির্বাচনে দুর্নীতি রোধের লক্ষ্যে রাষ্ট্র রাজনৈতিক দলগুলোকে অর্থের জোগান দিক।

Friday, July 26, 2019

লিবিয়া উপকূলে দেড় শতাধিক অভিবাসনপ্রত্যাশীর মৃত্যুর আশঙ্কা

 

লিবিয়া উপকূলে নৌযান ডুবে দেড় শতাধিক অভিবাসনপ্রত্যাশী নিখোঁজ হয়েছেন। একই ঘটনায় দেড় শ জনকে উদ্ধার করা হয়েছে। জাতিসংঘের শরণার্থীবিষয়ক সংস্থা (ইউএনএইচসিআর) এ তথ্য জানিয়েছে।

লিবিয়ার রাজধানী ত্রিপোলি থেকে ১২০ কিলোমিটার পূর্বের আল খোমস বন্দর থেকে অভিবাসীদের নিয়ে যাত্রা শুরু করে নৌযানটি। তিন শতাধিক আরোহী নিয়ে নৌযানটি ডুবে যায়। এরপর কোস্টাগার্ড ১৫০ জনকে উদ্ধার করে। বাকিরা নিখোঁজ রয়েছেন। তারা মারা গেছেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এ বছর এটাই ভূমধ্যসাগরে ঘটা সবচেয়ে ভয়াবহ দুর্ঘটনা বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এর আগে গত মে মাসে তিউনিসিয়া উপকূলে নৌকা ডুবে ৬৫ জন অভিবাসনপ্রত্যাশী প্রাণ হারিয়েছিলেন।

প্রতি বছর লিবিয়া থেকে ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে অসংখ্য অভিবাসনপ্রত্যাশী ইউরোপে যাওয়ার চেষ্টা করেন। ইউএনএইচসিআরের পরিসংখ্যান বলছে, ২০১৯ সালের প্রথম চার মাসে লিবিয়া থেকে ইউরোপ যাওয়ার পথে ১৬৪ জন মানুষ সমুদ্রে প্রাণ হারান।

চলতি বছরের প্রথম তিন মাসে প্রায় ১৬ হাজার শরণার্থী ও অভিবাসনপ্রত্যাশী ভূমধ্যসাগর হয়ে ইউরোপে পাড়ি জমিয়েছেন। গত বছরের শুরুর তিন মাসের তুলনায় যা প্রায় ১৭ শতাংশ কম। এই হার কমে আসার পেছনে কাজ করেছে নতুন একটি নীতি। সমুদ্রে অভিবাসনপ্রত্যাশীদের উদ্ধার করা হলে তাঁদের আবার লিবিয়ায় ফেরত পাঠাতে বাধ্য করছে ইতালি। আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থাগুলো এ নীতির নিন্দা জানিয়েছে। জাতিসংঘও বারবার বলেছে, ভূমধ্যসাগরে উদ্ধার হওয়া অভিবাসনপ্রত্যাশীদের পুনরায় লিবিয়ায় ফেরত পাঠানো উচিত নয়। লিবিয়ায় অভিবাসনপ্রত্যাশীদের যেমন অমানবিক পরিস্থিতিতে জীবনধারণ করতে হয়, সেটি বিবেচনায় নিয়েই তাঁদের লিবিয়ায় ফেরত পাঠানোর বিপক্ষে মত দেয় জাতিসংঘ।